ঢাকা, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ কার্তিক ১৪২৯, ২৯ জ্বিলক্বদ ১৪৪৩

একুশের চেতনাকে বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে বাঙালিকে দায়িত্বশীল হতে হবে : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী


প্রকাশ: ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২ ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন


একুশের চেতনাকে বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে বাঙালিকে দায়িত্বশীল হতে হবে : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেছেন, একুশের চেতনাকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে প্রতিটি বাঙালিকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। বাংলা ভাষার সম্প্রসারণের মাধ্যমে বিশ্ব পরিচয়ে বাঙালি হয়ে উঠবে অনন্য এক শক্তিশালী ও সন্মানিত জাতি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভাষা আল্লাহ পাকের এক মহা নেয়ামত। প্রত্যেক ব্যক্তিকে আল্লাহ তা’আলা ভাষার নেয়ামত দান করেছেন। মাতৃভাষা বা মায়ের ভাষায় নিজের ভাব প্রকাশ করা  মানুষের জন্মগত অধিকার। এই অধিকার রক্ষার আন্দোলন করেই বাঙ্গলার দামাল ছেলেরা  পৃথিবীতে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

আজ সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ, ঢাকায়  জাতীয় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা  দিবস-২০২২  উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত পবিত্র কোরআন খানি আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাতৃভাষা প্রত্যেকটি জাতির জাতিসত্তা বিকাশের অনবদ্য মাধ্যম। মাতৃভাষা ব্যতীত আত্মপরিচয় ও আত্মমর্যাদা সমৃদ্ধ মর্যাদা দিয়ে থাকে। মাতৃভাষার মর্যাদার ওপর ভিত্তি করেই একটা জাতিকে এগিয়ে যেতে হয়। এই পথচলায় বিপত্তি ঘটে পরাধীন জাতির। তাই বাংলাদেশের জনগণকে জ্ঞানের সব স্তরে বাংলা ভাষার প্রয়োগ বৃদ্ধিতে সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

তিনি বলেন, ভাষার অধিকারের পথ ধরেই গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক অধিকারের দাবি উচ্চকিত হয়েছিল। শুরু হয়েছিল, স্বায়ত্তশাসন ও স্বাধিকারের সংগ্রাম। এরপর ’৭০-এর নির্বাচন এবং একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারিতে ভাষা্র জন্য আত্মোতসর্গকারী শহিদদের রক্ত বৃথা যায়নি। ভাষা  শহিদদের  কল্যাণেই এখন ‘আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস’এর স্বীকৃতি পেয়ে বাংলা গৌরবের আরেক ধাপে উত্তীর্ণ হয়েছে।

ইসলামিক ফাউণ্ডেশন এর মহাপরিচালক ড. মোঃ মুশফিকুর রহমান এঁর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত  পবিত্র কোরআনখানি, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে আরও বক্তব্য রাখেন 

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (হজ) মতিউল ইসলাম, মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ফারুক আহাম্মেদ, ইসলামিক ফাউণ্ডেশন এর পরিচালক মহিউদ্দিন মজুমদার, ইসলামপুর  উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান চৌধুরী (শাহিন)।

অনুষ্ঠানে ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদগণ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা  আন্দোলনে আত্মত্যাগকারী বীর শহিদগণের বিদেহি আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মুসুল্লি দোয়া-মাহফিলে অংশ গ্রহণ করেন। 


   আরও সংবাদ